April 23, 2018

ফুলতলায় ওরসে কাফেলার মহিলা শিল্পীর হাত ধরে টানা হ্যাচড়াকে কেন্দ্র করে হাতাহাতি : শ্রমিক নেতাসহ ১০ জন আহত, শ্রমিক ও মাজার কমিটির পাল্টাপাল্টি প্রতিবাদ সভা

DSC_4698জুড়ী প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের জুড়ী উপজেলার ফুলতলা ইউনিয়নে শাহ নিমাত্র মাজারের ওরস উপলক্ষে প্রতি বৎসরের ন্যায় এবারও বেশ কিছু কাফেলা নির্মান করে গান বাদ্য করছিল ওরসে আসা ভক্তরা। প্রত্যক্ষদর্শী সূত্রে জানা যায়, ওরসের সমাপনি দিবসে জুড়ীর একটি কাফেলায় শুক্রবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩ টায় জুড়ী উপজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলামসহ কিছু শ্রমিক উপস্থিত হয়ে মহিলা শিল্পীর হাতধরে টানা হ্যাচড়া করলে উপস্থিত উত্তেজিত ভক্তরা শ্রমিকদের উপর চড়াও হয়। মুহুুর্তের মধ্যে শ্রমিকরাও উত্তেজিত হয়ে পড়লে চরম বিশৃংখলা সৃষ্টি হয় সেখানে। এ সময় শ্রমিক ও জনতার মাঝে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া শুরু হলে উভয় পক্ষের ৮/১০ জন আহত হয়। আহতদের জুড়ী শহরের বিভিন্ন ক্লিনিকে চিকিৎসা দেয়া হয় এবং গুরুতর আহতদের মৌলভীবাজার ও সিলেটে চিকিৎসার জন্য পাঠানো হয়। পরে কিছু সংখ্যক ট্রাক শ্রমিক রাস্তায় ব্যারিকেড সৃষ্টি করলে ওরসে আগত ভক্ত বৃন্দের প্রতিরোধের মুখে শ্রমিকরা ব্যারিকেড তুলে নিতে বাধ্য হয়। এ নিয়ে পরদিন শনিবার সন্ধ্যা ৭ টায় জুড়ী শহরের বাসষ্ট্যান্ডে ট্রাক শ্রমিকরা এক প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে। ওই সভায় শ্রমিকনেতারা মাজার কমিটির সভাপতি ও ফুলতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুক আহমদকে দোষারূপ করে অকথ্য ভাষায় গালি গালাজ করে। এমনকি চেয়ারম্যান রাস্তায় বের হলে তার বহনকৃত গাড়ি জ্বালিয়ে দেয়াসহ তাঁকে প্রাণ নাশের হুমকী দেয়। এরই প্রতিবাদে গতকাল রবিবার সকাল ১১ টায় মাজার প্রাঙ্গনে ওরস পরিচালনা কমিটি ও ভক্ত বৃন্দের আহবানে অপর একটি প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত হয়। সভায় আগত নেতৃবৃন্দের পক্ষ থেকে এ ঘটনার জন্য দায়ীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি নিশ্চিত করার জন্য প্রশাসনের নিকট জোর দাবী জানানো হয়। এব্যাপারে ফুলতলা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মাসুক আহমদের দৃষ্টি আকর্ষন করা হলে তিনি বলেন, হযরত শাহ নিমাত্রা (রহঃ) এর পবিত্র ওরস মোবারকের শেষ দিবসে রাতের শেষাংশে একটি কাফেলার মহিলা শিল্পীর হাতধরে টানা টানির এক পর্যায়ে শ্রমিকদের সাথে ভক্তদের হাতাহাতি হলে উভয় পক্ষের কিছু লোক আহত হয়। কিন্তু এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে কিছু শ্রমিকসহ একটি কুচক্রীমহল আমার বিরুদ্ধে অহেতুক ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়েছে। ঘটনাটির সুষ্টু তদন্ত পূর্বক দোষীদেরকে আইনের আওতায় এনে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানান তিনি। এ ব্যাপারে জুড়ী উপজেলা ট্রাক শ্রমিক ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলাম বলেন, পূর্বের একটি ঘটনার জের ধরে চেয়ারম্যানের লোকজন জুড়ীর একটি কাফেলায় পরিকল্পিত ভাবে আমাদের উপর হামলা চালায়। বিষয়টি নিয়ে মিমাংসার চেষ্টা চলছে। এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত এলাকায় টান টান উত্তেজনা বিরাজ করছে।

সর্বশেষ সংবাদ