May 21, 2018

পাইলটের সঙ্গে কন্ট্রোল রুমের কথোপকথনের অডিও ফাঁস নিয়ে তদন্ত শুরু

xPlane-Crash_TIA-750x430.jpg.pagespeed.ic.zbTL7b-fBwবাংলানিউজ ডেস্ক: নেপালের ত্রিভুবন বিমানবন্দরে ইউএস-বাংলা ফ্লাইট বিএস-২১১ বিধ্বস্তের আগে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোলারের সঙ্গে পাইলটের হওয়া কথোপকথন কিভাবে বাইরে দ্রুত ছড়িয়ে পড়লো তা যৌথভাবে তদন্ত করবে নেপাল  বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ( সিএএএন) এবং সেন্ট্রাল ইনভেস্টিগেশন ব্যুরো ( সিআইবি)। বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষ (সিএএএন) এর মহাপরিচালক সঞ্জীব গৌতম মঙ্গলবার এক সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক বিমান সংস্থা (আইসিএও) নিয়ম অনুযায়ী এয়ারক্রাফটের ব্ল্যাক বক্সের রেকর্ড প্রকাশ করা সম্পূর্ণ নিষেধ। আমরা উড়োজাহাজটির পাইলট এবং ট্রাফিক কন্ট্রোলার মধ্যে হওয়া কথোপকথন ফাঁস হওয়া ব্যাপারটি গভীরভাবে তদন্ত করবো। ‘দুর্ঘটনার সময় ত্রিভুবন বিমানবন্দরের কন্ট্রোল রুমে কর্মরত ছয় জনকে সাময়িক ভাবে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে। দুর্ঘটনার ঘটার মাত্র ২ মিনিট পর সেখানে উদ্ধার কর্মীরা পৌঁছাতে সক্ষম হয় বলে দাবি করেন এই কর্মকর্তা।’ তবে এর আগে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের উপ-মহাপরিচালক রাজন পোখারেল বলেন, দুর্ঘটনায় তাদের চাপ কমানোর জন্য আমরা তাদের অন্য বিভাগে স্থানান্তরিত করেছি। তবে তিনি স্পষ্ট করে জানান, ফ্লাইট-২১১ এবং এটিসি’র মধ্যকার কথোপকথনের অডিও রেকর্ডের যে বিভ্রান্ত সৃষ্টি হয়েছে, তার জন্য তাদের স্থানান্তর করা হয়নি। তাদের মানসিক অবস্থা বিবেচনা করেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সোমবার ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বোমবার্ডিয়ার ড্যাশ ৮ কিউ৪০০ উড়োজাহাজটি ঢাকা থেকে ছেড়ে গিয়ে দুপুর ২টা ২০ মিনিটে নেপালে কাঠমান্ডুর ত্রিভুবন বিমানবন্দরে অবতরণ করার সময়েই দুর্ঘটনার শিকার হয়।এতে উড়োজাহাজ বিধ্বস্তের ঘটনায় এখন পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা ৪৯ জন।২১জন চিকিৎসাধীন যাত্রীদের মধ্যে তিনজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক। উড়োজাহাজটিতে থাকা ৬৭ যাত্রীর মধ্যে ৩২ জন বাংলাদেশি, ৩৩ জন নেপালি।

সর্বশেষ সংবাদ