December 14, 2017

আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচন : মৌলভীবাজার-১ আসনে ৯ প্রার্থীর নির্বাচনী প্রস্তুতি

Untitled-1-copy-2বিশেষ প্রতিনিধি : মৌলভীবাজারের সীমান্তবর্তী বড়লেখা ও জুড়ী উপজেলা নিয়ে মৌলভীবাজার-১ আসন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে আওয়ামী লীগ, বিএনপি, জাতীয় পার্টি ও জামায়াতের ৯ প্রার্থী রমজানে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ, ঈদ শুভেচ্ছা, সাম্প্রতিক দীর্ঘমেয়াদী বন্যাদুর্গত ও ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ত্রাণ বিতরণের মাধ্যমে নির্বাচনী প্রস্তুতি শুরু করেন। এ আসনে আ’লীগের রয়েছেন জেলার হেভিওয়েট প্রার্থী ক্ষমতাসীন দলের জাতীয় সংসদের হুইপ শাহাব উদ্দিন এমপি। তার অনুসারী নেতাকর্মীদের মতে তিনিই দলের একক প্রার্থী। কিন্ত উপজেলা আ’লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও বড়লেখা উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুৃল ইসলাম সুন্দর আ’লীগের প্রার্থী হচ্ছেন এমনটাও শুনা যাচ্ছে। বিএনপির চার প্রার্থী হাইকমান্ডের দৃষ্টি কাড়তে এলাকায় দলীয় কর্মকান্ড ও গণসংযোগ চালাচ্ছেন। বসে নেই জাপা ও জামায়াত সমর্থিত প্রার্থীরাও।
বড়লেখা উপজেলার ১০ ইউনিয়ন ও ১ পৌরসভা এবং জুড়ী উপজেলার ৬ ইউনিয়ন নিয়ে মৌলভীবাজার-১ আসন গঠিত। ২০১৪ সলের ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনে জাপা (এরশাদ) প্রার্থী আহমদ রিয়াজের সাথে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে সাংসদ নির্বাচিত হন শাহাব উদ্দিন। আওয়ামী লীগ সরকার তাকে জাতীয় সংসদের হুইপ নির্বাচিত করে। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ছাড়াও ২৮ অক্টোবর জেলা আ’লীগের কাউন্সিলে সহসভাপতি নির্বাচিত হন।
এক সময়ের নৌকার ঘাটি খ্যাত এ আসনে আ’লীগের ভোট ব্যাংক হচ্ছে ১৯ টি চা বাগানের চা শ্রমিক ভোটার। কিন্তু আ’লীগের এ দুর্গে প্রথম আঘাত আনে জাতীয় পার্টি (এরশাদ)। ৯১’র নির্বাচনের জাপা প্রার্থী অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী বিজয়ী হন। কিন্তু পরবর্তীতে তিনি বিএনপিতে যোগদান করেন এবং ২০০১ সালের জোটবদ্ধ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে বিএনপি-জাাময়াত জোট সরকারের প্রতিমন্ত্রী হন। ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী শাহাব উদ্দিন হারানো আসন পুনরুদ্ধার করেন। ২০০৮ সাল এবং ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারীর নির্বাচনে পরপর তিনি তৃতীয়বারের মত সাংসদ নির্বাচিত হন।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে হুইপ শাহাব উদ্দিন প্রার্থী হচ্ছেন নিশ্চিত করে তিনি জানান, এলাকায় তিনি ব্যাপক উন্নয়ন করেছেন। গত দুই মেয়াদে বড়লেখা ও জুড়ি উপজেলায় ২১টি স্কুল এমপিওভুক্ত, সুজানগর পাথারিয়া কলেজ প্রতিষ্ঠা, ৭০টি প্রাইমারী স্কুলের ভবন নির্মাণ, ১৬ কোটি টাকা ব্যয়ে জুড়ী-বড়লেখা-চান্দগ্রাম সিএন্ডবি সড়ক সংস্কার ও ৫০টি ব্রিজ নির্মাণ করেছেন। ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে মাধবকুন্ড ইকোপার্ক এবং সাড়ে ৩ কোটি টাকা ব্যয়ে ৪ তলা বিশিষ্ট আধুনিক রেস্ট হাউজ, ৮ কোটি টাকা ব্যয়ে কাঁঠালতলী-মাধবকু- রাস্তা সংস্কার করেছেন। বড়লেখা ও জুড়িতে প্রায় ২৫০ কিলোমিটার বিদ্যুৎ লাইন স্থাপন করেছেন। সাম্প্রতিক বন্যা দুর্গতদের পাশে দাড়িয়েছেন। সরকার ও বিভিন্ন ব্যক্তি সংগঠনের পক্ষে ব্যাপক ত্রাণ বিতরণ করেছেন।
বড়লেখা উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ স¤পাদক ও উপজেলা চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলাম সুন্দর একাদশ সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী হচ্ছেন এমনটাই শুনা যাচ্ছে। তৃণমুলের সাথে ঘনিষ্ট যোগাযোগ, প্রাকৃতিক দুর্যোগে প্রত্যন্ত এলাকার লোকজনকে সাহায্য সহযোগিতা, নেতাকর্মীর সাথে মতবিনিময়কে অনেকেই সংসদ নির্বাচনের পূর্বপ্রস্তুতি বলেই ইঙ্গিত করেন। এ ব্যাপারে রফিকুল ইসলাম সুন্দর জানান, দলের অনেকেই তাকে প্রার্থী হতে বলছেন। আগামী নির্বাচনে নৌকার প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করার প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এদিকে নির্বাচনী মাঠে বিএনপির ৪ নেতা প্রস্তুতি চালাচ্ছেন। সাবেক প্রতিমন্ত্রী, কেন্দ্রীয় বিএনপির সদস্য ও জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি অ্যাডভোকেট এবাদুর রহমান চৌধুরী একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচের বিএনপির সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে এলাকার ব্যাপক যোগাযোগ রাখছেন। তিনি জানান, আগামী নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশী, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার নির্দ্দেশে মাঠে কাজ করে যাচ্ছেন।
নেত্রীর মুক্তি, গণতন্ত্র হত্যাসহ ১২টি অভিযোগ এনে বিগত তত্তাবধায়ক সরকারের বিরুদ্ধে আর্ন্তজাতিক আদালতে মামলা দায়ের করে ‘টক অব দি বাংলাদেশে’ পরিণত হন দারাদ আহমদ। সরকারের বিরুদ্ধে মামলা করেও ইস্তফা দেননি দারাদ আহমদ। তিনি বিভিন্ন দেশে বিএনপি রাজনীতি, রাজনৈতিক নেতাদের এক করার লক্ষে দীর্ঘ দিন কাজ করে গেছেন। বিএনপির অন্যতম নেতা দারাদ আহমদ তার অভিব্যক্তে বলেন, রাজনীতিতে যখন বিএনপি’র দুঃসময় ঠিক সেই সময়ে দলের একজন কর্মী হয়ে চুপচাপ বসে থাকতে পারিনি। বিএনপি’র রাজনীতির সাথে আমার সংশ্লিষ্টতা ছাত্রজীবন থেকে। দল এবং এলাকার মানুষসহ আমার চেয়ারপার্সন দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াসহ বিএনপি’র প্রতিটি স্তরের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের ভালবাসায় আমি শিক্ত। জীবনের এ পর্যায়ে আমার চাওয়া-পাওয়ার কিছুই নেই। দলকে পুনরজ্জীবিত ও শক্তিশালী করার লক্ষে ফ্রান্স, জার্মানি, স্পেন , সৌদি আরব, দুবাই ও কুরিয়া উপস্থিত থেকে প্রবাসী নেতাকর্মীদের নিয়ে বিএনপি’র কমিটি গঠন করেছি। দলকে শক্তিশালি করেছি। এখন দল মনোনয়ন দিলে আমি ধানের শিষে বিজয় চিনিয়ে আনতে সক্ষম হব।
ঢাকাস্থ জালালাবাদ অ্যাসোসিয়েশনের সিনিয়র সহসভাপতি, জেলা বিএনপির সহসভাপতি ও জুড়ী উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক বিশিষ্ট শিল্পপতি নাসির উদ্দিন আহমদ মিঠু একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। এলাকার ১৬ ইউনিয়নে বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়া ঘোষিত ভিশন ২০৩০ পুস্তিকা বিতরণ, প্রায় ৬ হাজার বন্যা দুর্গত মানুষের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করেন। বিভিন্ন পয়েন্টে নেতাকর্মী ও সাধারণ জনগনকে ব্যানার-ফেস্টুনের মাধ্যমে নির্বচানের প্রার্থীতার জানান দিচ্ছেন। নাসির উদ্দিন আহমদ মিঠু জানান, আগামী সংসদ নির্বাচনে তিনি প্রার্থী হচ্ছেন। বিএনপির হাইকমান্ডের নির্দেশে তৃণমুলে দলীয় কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছেন। দল তাকে মনোনয়ন না দিলেও দলীয় প্রার্থীর পক্ষে কাজ করবেন।
কেন্দ্রীয় যুবদলের সাবেক সহ আর্ন্তজাতিক বিষয়ক সম্পাদক কাতার বিএনপির সদস্য সচিব শরীফুল হক সাজু যুবদলের রাজনীতির পাশাপাশি মধ্যপ্রাচ্য ও ইউরোপ-আমেরিকায় বিএনপির পক্ষে জনমত সৃষ্টি ও দলকে সুসংঘটিত করার কাজে জড়িত। মৌলভীবাজার-১ আসন থেকে ২০০৮ সালেও তিনি মনোনয়ন প্রত্যাশী ছিলেন। সচিব শরীফুল হক সাজু বলেন তৃণমুল নেতাকর্মী তার সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রাখছেন। তিনি নির্বাচনের প্রস্তুতি নিচ্ছেন।
জাতীয় পার্টির প্রার্থী হিসেবে প্রস্তুতি চালাচ্ছেন বড়লেখার আহমেদ রিয়াজ ও জুড়ী উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম শামীম। আহমেদ রিয়াজ জানান, মৌলভীবাজার-১ ও মৌলভীবাজার-২ আসন থেকে তিনি মনোনয়ন চাইবেন। জাপা নেতা অ্যাডভোকেট মাহবুবুল আলম শামীম জানান, একাদশ সংসদ নির্বাচনে অংশ নিতে তিনি প্রস্তুতি স্বরূপ মাঠে কাজ করছেন।
এদিকে প্রতিকুলতার মধ্যে জামায়াত শিবির একাদশ সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে সবধরণের প্রস্তুতি চালিয়ে যাচ্ছে। জামায়াত নেতা ও ব্যবসায়ী মাওলানা আমিনুল ইসলামকে প্রার্থী হিসেবে তৃণমুল জামায়াত অগ্রসর হচ্ছে। জামায়াতের নেতাকর্মীরা এলাকায় খাদ্য বিতরণ ও বন্যাসহ নানা প্রাকৃতিক দুর্যোগে ত্রাণ বিতরণের মাধ্যমে গণসংযোগ চালিয়ে যাচ্ছে।

সর্বশেষ সংবাদ