April 25, 2018

মেক্সিকোর শিক্ষককের ছবি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিভ্রান্তি

এমন ছবি আর বর্ণনার কারণে অনেকেই সেই শিক্ষকের প্রতি সমবেদনা জানাচ্ছে। কেউ কেউ তার সাহসী কর্মকাণ্ডের কারণে স্যালুট দিচ্ছেন। তবে আসল ঘটনা হচ্ছে যার ছবি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে এতো আলোচনা, তিনি এদেশে কেউ নন।

আরও অবাক করা ব্যাপার হচ্ছে, ছবিটি ২০১৬ সালের জুলাই মাসে মেক্সিকোর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ভাইরাল হয়। অবশ্য সেখানেও শিশুটিকে ওই শিক্ষকের সন্তান বলেই চালিয়ে দেয়া হয়েছিল।

পরবর্তীতে ওই শিক্ষকই ফেসবুকে ছবিটি শেয়ার করে জানান, তার নাম মোসেস রাইয়েস স্যানডোভাল। তিনি মেক্সিকোর দক্ষিণাঞ্চলের গুয়েরো অঙ্গরাজ্যের আকাপুলকো শহরের একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন।

বিভ্রান্তি দূর করতে বিব্রত মোসেস জানান, বাচ্চার বাবা আমি নই। কোলের বাচ্চাটি আসলে তার এক ছাত্রীর। সেই সাহসী নারী সিঙ্গেল মাদার হওয়া সত্ত্বেও জীবনে সাফল্যের মুখ দেখতে অধ্যয়নসহ নানা কর্মকাণ্ডের সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন। শিশুটিকে সঙ্গে নিয়েই তার ওই ছাত্রী পড়াশোনাসহ বিভিন্ন কাজ করে থাকেন।

ওই শিক্ষকের ভাষায়: ছাত্রীটি সিঙ্গেল মাদার। সে কাজ করে পড়াশোনা করে এবং জীবনে সফল হতে চায়। সে বিভিন্ন কাজের সঙ্গে যুক্ত হলেও পড়াশোনা থেকে বিরত থাকেনি। এই কারণে আমি ক্লাস চলাকালীন সময়ে বাচ্চাটাকে নিজের কাছে রাখার সিদ্ধান্ত নেই। যাতে শিশুটির মায়ের নোট তৈরি করতে অসুবিধা না হয়। আপনাদের ভাল মন্তব্যের জন্য ধন্যবাদ।

সম্প্রতি বাংলাদেশের ফেসবুক কমিউনিটিতে এই ছবিটিই আবার ভাইরাল হয়েছে। যেখানে উক্ত শিক্ষককে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক বলে প্রচার করা হচ্ছে।

সর্বশেষ সংবাদ