January 20, 2018

স্বপ্নবাজ কবি রাখাল আচার্য্য

3মাহফুজ শাকিল : রাখাল। পুরো নাম রাখাল আচার্য্য। একজন প্রতিভাবান ও স্বপ্নবাজ কবি। কুলাউড়া সদর ইউনিয়নের শিবির গ্রামের আলো বাতাসে বেড়ে ওঠা। পিতার নাম মৃত রঞ্জিত আচার্য্য ও মাতার রেখা আচার্য্য। পরিবারের ২ ভাই ও ১ বোনের মধ্যে রাখাল সবার বড়। অগোছালো হয়ে ঘুরে বেড়ালেও ঝরে পড়েননি সাহিত্য কর্ম থেকে। পছন্দ করেন কবিতা, গল্প লিখতে, মানুষ আর প্রকৃতির ছবি আঁকতে। একস্থানে বসেই একে দিতে পারেন মানুষের স্কেচ। স্বাধীনপ্রেমী রাখালের প্রিয় শখ ভ্রমণ ও যাযাবর জীবনযাপন। যখন যেখানে মন চায় সেখানেই তিনি দিনাতিপাত করেন। কখনও নিজবাড়ি, কখনও বন্ধুদের বাসা, কখনও বা স্টেশনের প্লাটফর্মে রাত্রিযাপন করেন। পকেটে টাকা না থাকলেও চষে বেড়ান সারা দেশ। রাখালকে এক নামে চেনেন প্রাচ্যর অক্সফোর্ড খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শতকরা ৯০ ভাগ শিক্ষক-শিক্ষার্থী। মানুষের আবদার রাখতে গিয়ে আবৃত্তি করে শুনান কবিতা ও গান। এ প্রজন্মের সাহিত্যকর্মীদের উদ্বুদ্ধ করেন কবিতা লিখতে। পৈতৃক সম্পত্তি থাকা সত্ত্বেও রাখাল আচার্য্য সাধারণ মানুষের সাথে চলাফেরা করতে স্বাচ্ছন্দবোধ করেন। তিনি এ পর্যন্ত কবিতা লিখেছেন প্রায় ৫ হাজারেরও বেশি। স্থানীয়, জাতীয়সহ বিভিন্ন সাময়িকীর পাতায় ছাপা হয়েছে ১ হাজারেরও বেশি কবিতা। কুলাউড়াসহ পুরো জেলা থেকে প্রকাশিত পত্রিকা ও সাময়িকীতে রাখালের কবিতা স্থান পায় সবার উর্ধ্বে। হেমন্তের এক পড়ন্ত বিকেলে আচমকা তিনি হাজির হন সাপ্তাহিক কুলাউড়ার ডাক পত্রিকার কার্যালয়ে। সে সুযোগটি হাতছাড়া করেননি এ প্রতিবেদক। খোলামেলা কথা হয় রাখালের বাল্যকাল থেকে এ পর্যন্ত বেড়ে ওঠার কথা নিয়ে। এত কবিতা লেখার পরও নিজ উদ্যোগে প্রকাশ করেননি কোন বই। তিনি বলেন, নিজ অর্থে কোন কাব্য গ্রন্থ প্রকাশ করতে ইচ্ছুক নই আমি। রাখালের বিখ্যাত একটি কবিতার নাম হল “কবি”। তাছাড়াও আরো কয়েকটি কবিতা হল-মা, তুমি এবং স্বপ্নের দুপুর ইত্যাদি। কবিতাগুলো কুলাউড়ার সাহিত্যকর্মীরা অনেক সময় আবৃত্তি করতে দেখা যায়। রাখালের বিশেষ একটি উক্তি হল, ‘‘এ পৃথিবীতে শতকরা ৯০ ভাগ মানুষই ভাল ও ১০ ভাগ মানুষ খারাপ। এই ১০ ভাগ খারাপ মানুষের জন্যই আমরা বাকি সবাইকে খারাপ ভেবে থাকি’’। প্রেম ভালবাসা নিয়ে একটি অবিস্মরণীয় উক্তি হল, ‘‘পৃথিবীতে একমাত্র ভালবাসা দিয়ে সবকিছু জয় করা সম্ভব। এর চেয়ে বেশি শক্তিশালী আর কিছু নেই’’। ঘন্টাখানেক আলাপচারিতার পর চলে গেলেন রাখাল আচার্য্য। একদিন হয়তো তিনি পৃথিবী ছেড়েও চলে যাবেন। কিন্তু তাঁর সাহিত্যকর্মগুলো অমর হয়ে রবে সবার হৃদয়ে…।

সর্বশেষ সংবাদ