November 21, 2017

বাংলাদেশে রোহিঙ্গা শরণার্থীদের জন্য ভারতের অপারেশন ইনসানিয়াত

82921_rohinবাংলানিউজ ডেস্ক : রোহিঙ্গা ইস্যুতে ভারত কঠোর মনোভাব নিয়ে চললেও মানবিক কারণেই বাংলাদেশে ত্রাণ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে ভারত সরকার। এটিকে অপারেশন ইনসানিয়াত বলে উল্লেখ করা হয়েছে। ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রকের এই বিবৃতিতে বৃহষ্পতিবার জানানো হয়েছে, বাংলাদেশে বিপুল সংখ্যক রোহিঙ্গা শরণার্থী আশ্রয় নেবার ফলে যে মানবিক সঙ্কট তেরি হয়েছে তার পরিপ্রেক্ষিতে ভারত বাংলাদেশের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিযেছে। বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, বাংলাদেশের সঙ্গে ভারতের বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্কের কথা মনে রেখে ভারত বাংলাদেশের যে কোন সঙ্কটে সবসময়ই দ্রুত এবং তৎপরতার সঙ্গে সাড়া দিয়েছে। আজকের এই প্রয়োজনের সময়েও ভারত সহায়তা দিতে প্রস্তুত বলে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রক থেকে জানানো হযেছে। ভারত বেশ কয়েক দফায় এই ত্রাণ সামগ্রী বাংলাদেশে পাঠাবে। ত্রাণ সামগ্রীর মধ্যে রয়েছে চাল, ডাল, নুন, চিনি সহ সব ধরণের নিত্য প্রযোজনীয় জিনিসপত্র। এছাড়াও চিকিসার জন্য ওষুধ এবং আশ্রয়শিবির তৈরির সরঞ্জামও পাঠানো হবে। আজ বৃহষ্পতিবারই ভারতীয় বায়ুসেনার একটি বিমান প্রথম দফায় ত্রাণ সামগ্রী নিয়ে চট্টগ্রাম বিমানবন্দরে অবতরণ করবে। বাংলাদেশে নিযুক্ত ভারতীয় হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রিংলা সেই ত্রাণ বাংলাদেশের সড়ক যোগাযোগ ও সেতু মন্ত্রী তথা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরকে হস্তান্তর করবেন। এর আগেই কাদের ভারতকে পাশে পাবার কথা জানিয়েছিলেন। গত রবিবারই ভারতে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার সৈযদ মুয়াজ্জেম আলি ভারতের পররাষ্ট্র সচিবের সঙ্গে দেখা করে বাংলাদেশে লাখ লাখ রোহিঙ্গা আশ্রয় নেওয়ায় ফলে কি সংকটজনক পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা ব্যাখ্যা করেছিলেন। গত দুই সপ্তাহে মায়ানমারের রাখাইন প্রদেশে সেখানকার সেনাবাহিনীর অত্যাচারের শিকার হয়ে প্রায় পৌনে চার লক্ষ রোহিঙ্গা মুসলিম বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে। বাংলাদেশ সরকার মানবিক কারণেই তাদের জায়গা দিয়েছে থাকার জন্য। ভারতীয় বার্তা সংস্থা পিটিআইয়ের খবরে বলা হয়েছে, রোহিঙ্গা শরণার্থী  সমস্যা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা হয়েছে। তারপরেই ভারত সরকার ত্রাণ পাঠানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এদিকে রোহিঙ্গা সমস্যা সমাধানে ঢাকার তরফে মায়ানমার সরকার সহ আন্তর্জাতিক স্তরে আবেদন জানানো হয়েছে।

সর্বশেষ সংবাদ