September 19, 2017

মায়ানমারের রোহিঙ্গা হত্যাযজ্ঞের অবশাণ হোক

FB_IMG_1484231984692রায়হান আহমেদ তপাদার : খ্রিস্টীয় অষ্টম শতাব্দীতে আরবের বাণিজ্য জাহাজ রামব্রি দ্বীপের তীরে এক সংঘর্ষে ভেঙে পড়ে। তখন তারা রহম! রহম বলে আল্লাহর কাছে দয়া ভিক্ষা করে। আল্লাহতায়ালা তাদের বাঁচিয়ে দেন। সে থেকেই তারা রোহিঙ্গা নামে পরিচিতি লাভ করে। জাতিসংঘের তথ্যমতে, বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে নির্যাতিত জনগোষ্ঠীর নাম ‘রোহিঙ্গা’। বিবিসির এক খবরে বলা হয়েছে, গত ৯ অক্টোবর থেকে ১৬ অক্টোবর পর্যন্ত এক সপ্তাহে মিয়ানমারে ৬৯ জন রোহিঙ্গা মুসলিমকে হত্যা করেছে দেশটির সেনাবাহিনী। নিরীহ রোহিঙ্গাদের ওপর তারা হেলিকপ্টার থেকেও নির্বিচারে গুলি ছুড়েছে।  রাখাইন প্রদেশে সম্প্রতি শুরু হওয়া বিদ্রোহ দমনের অংশ হিসেবেই এই হামলা চালানো হয়েছে বলে সেনাবাহিনী স্বীকার করেছে। আর রোহিঙ্গা সূত্রগুলো বলছে, সেনাবাহিনী সেখানে অধিবাসীদের হত্যার পাশাপাশি ধর্ষণও করছে,গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে দিয়েছে। বার্মা সরকারের নির্যাতনের কারণে দেশ ত্যাগে বাধ্য হয়ে ৫ লাখের বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশ এবং প্রায় ৫ লাখ সৌদি আরবে চলে যাওয়ার একটি পরিসংখ্যান উইকিপিডিয়া তুলে ধরেছে। মূলত ধর্মীয় কারণেই তাদের ওপর নির্যাতন শুরু হয়েছে। সালাত আদায়ে বাধা দেওয়াসহ নির্বিচারে হত্যা ও নারীদের ধর্ষণের শিকার হতে হচ্ছে। তাদের সম্পত্তি জোর করে কেড়ে নেওয়া হচ্ছে এবং  শিক্ষা ও স্বাস্থ্যসেবার সুযোগ দেওয়া হচ্ছে না। তাদের সংখ্যা যাতে বাড়তে না পারে সে জন্য বিয়ে করার অনুমতিও নেই তাদের। বৌদ্ধ রাখাইনদের টার্গেট হলো নিরস্ত্র রোহিঙ্গা মুসলিম জনগোষ্ঠীকে নির্যাতনের মাধ্যমে নির্মূল করে দেওয়া। সেই লক্ষ্যে স্থানীয় সরকার, কেন্দ্রীয় সরকার ও সেনাবাহিনী পরিকল্পিতভাবে রোহিঙ্গাদের দেশ থেকে বের করে দিতেই হত্যাযজ্ঞ চালাচ্ছে।  অপরদিকে রোহিঙ্গাদের কান্নায় পৃথিবীর আকাশ ভারি হয়ে ওঠছে। মুসলিম নারী-পুরুষ ও শিশুরা বাঁচাও বাঁচাও বলে আর্তচিৎকার করছে। মায়ানমারের সরকার তাদের ওপর নির্যাতনের স্টিম রোলার চালাচ্ছে। হত্যা করছে অসংখ্য মানুষ। ধর্ষণ করছে মা-বোনদের। বিধবা করছে হাজারো নারী। সন্তানহারা করছে অসংখ্য মাকে। কোথায় আজ বিশ্ব মুসলমানদের সহযোগিতা ও ভ্রাতৃত্বের লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠিত সংস্থা ওআইসি। নীরব কেন আজ মানবাধিকার সংস্থা? নিশ্চুপ কেন জাতিসংঘ?। পৃথিবীতে দেড়শ’ কোটি মুসলমান থাকার পরও কেন দেশে-দেশে মুসলমানরা আজ নির্যাতিত? রোহিঙ্গাদের ওপর নির্মম নির্যাতন এটা পরিষ্কার করে দিয়েছে যে, গোটা বিশ্বের মুসলমানরা বিপন্ন। রোহিঙ্গাদের চেহারা দেখে কার চোখ না অশ্রুসিক্ত হবে? আপনার সামনে আপনার ভাই-বোন, মা-বাপ, ছেলেমেয়েদের যদি আগুনে পুড়িয়ে ছাই করে, শরীরের ওপর কামান তুলে মাথার মগজ বের করে ফেলে, চোখের সামনে তাজাদেহ দ্বিখণ্ডিত করে ফেলে তখন আপনার কেমন লাগবে? জাতিসংঘ রোহিঙ্গা সম্প্রদায়কে বিশ্বের সবচেয়ে বর্বর নির্যাতনের শিকার জনগোষ্ঠী হিসেবে অভিহিত করেছে। রাখাইন প্রদেশে সম্প্রতি শুরু হওয়া রোহিঙ্গাদের ওপর ভয়াবহ অত্যাচার-নির্যাতন চালাচ্ছে মিয়ানমার সরকার। মিয়ানমারের রাখাইন প্রদেশে বসবাসকারী আদিবাসী রোহিঙ্গা মুসলমানরা কয়েক দশক ধরে জাতিগত নিধনের শিকার হচ্ছে। তাদের নাগরিক হিসেবে স্বীকৃতি দিতেও অস্বীকার করে আসছে মিয়ানমার সরকার। নতুন করে গত ৮ অক্টোবর থেকে রোহিঙ্গা মুসলমারদের বিরুদ্ধে গণহত্যা অভিযান চালাচ্ছে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী, সীমান্তরক্ষী এবং সীমান্ত পুলিশ।সম্প্রতি রোহিঙ্গাদের শহরটি যেন গণহত্যার কূপে পরিণত হয়েছে।  বার্মিজ সরকারপন্থি পত্রিকা দ্য নিউ লাইট অব মায়ানমার সূত্রে জানা গেছে ২৬ অক্টোবর৮টি মসজিদসহ ২০০০ রোহিঙ্গার ঘরবাড়ি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।ধারণা করা হচ্ছে, ইতিমধ্যে রোহিঙ্গাদের আনুমানিক ১০ হাজার বসতি পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। অনেক রোহিঙ্গা প্রাণভয়ে পালাচ্ছে সাগরে কিংবা জঙ্গলে, তবুও বাঁচতে পারছে না তারা।মুসলিমদের নির্বিচারে হত্যা করা হবে আর প্রতিবেশী মুসলিমরা শুধু তাকিয়ে দেখবে! এ হতে পারে না। মুসলিম ক্ষমতাধর রাষ্ট্রপ্রধানরা চুপ না থেকে নির্যাতিত মুসলিমদের পাশে কি দাঁড়াতে পারে না। বিশ্বের শক্তিধর রাষ্ট্রগুলোর পক্ষ থেকে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করলে নির্যাতন থেকে তাদের মুক্তি পাওয়া সম্ভব। তারা যাতে নাগরিকত্ব ফিরে পায় সেই লক্ষ্যে সার্বিক ব্যবস্থা নিতে মিয়ানমার সরকারের ওপর মুসলমানদের কার্যকর চাপ সৃষ্টি করা জরুরি হয়ে পড়েছে। রোহিঙ্গা মুসলিমদের ওপর নির্যাতন ও হামলার ঘটনা খুব বেশি প্রকাশিত হচ্ছে না। অবস্থাটা এমন যে, মুসলিমদের হত্যার বেলায় মিডিয়া প্রচারবিমুখ। অথচ মুসলিম সম্প্রদায় ছাড়া অন্য কোনো সম্প্রদায়ের ওপর যখন কোনো হামলা হয় তখন সে বিষয়টি খুব গুরুত্বের সঙ্গে প্রচার করা হয়।পৃথিবীর প্রতিটি মুসলমান একটি শরীরের মতো। শরীরের এক স্থানে যখন আঘাত লাগে তখন অন্য স্থানেও ব্যথা অনুভব হয়। তেমনি বিশ্বের এক প্রান্তে কোনো মুসলমান বিপদগ্রস্ত হলে অন্য প্রান্তে তার ভাইয়েরও পেরেশান হয়ে পড়ার কথা।তাইপ্রতিবেশীর কষ্টকে নিজের কষ্ট মনে করার শিক্ষা দিয়েছে ইসলাম। অথচ আজকের মুসলমান রোহিঙ্গা মুসলিম হত্যার বিষয়ে নিশ্চুপ। রোহিঙ্গারা মূলত মিয়ানমারের নাগরিক। ধর্মীয় পার্থক্য ও বৈপরীত্যের কারণেই রোহিঙ্গাদের ওপর এমন নির্যাতন চালানো হচ্ছে।  রোহিঙ্গা জনগোষ্ঠীর ওপর সামরিক শক্তি নিয়ে ঝাঁপিয়ে পড়ে, অমানবিক এবং নৃশংস হত্যাকাণ্ডের মাধ্যমে রোহিঙ্গা শূন্য করার খেলায় মেতে উঠেছে। জাতিসংঘের তথ্যমতে রোহিঙ্গারা বিশ্বের সবচেয়ে বেশি ভাগ্যাহত জনগোষ্ঠী। শত শত বছর ধরে তারা নির্যাতিত ও নিপিড়ীত হচ্ছে। নির্যাতনের চিত্রগুলো বিশ্বমিডিয়ায় প্রকাশ পেয়েছে। সম্পত্তি জোর করে কেড়ে নেয়াসহ শিক্ষা ও স্বাস্থ্য সেবার সুযোগ দেয়া হয় না। তাদের সংখ্যা যাতে বাড়তে না পারে সে জন্য বিয়ে করার অনুমতি দেয়া হয় না। ১৮ নভেম্বর একটি দৈনিকের আন্তর্জাতিক পাতায় রোহিঙ্গা মুসলমানরা মানবতাবিরোধী অপরাধের শিকার শিরোনামে প্রকাশিত খবরে জানা যায়, মিয়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানরা ভয়াবহ নির্যাতনের শিকার। মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানরা ব্যাপকহারে মানবতাবিরোধী অপরাধের শিকার হচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন মিসরের আল আজহার বিশ্ববিদ্যালয়েল গ্রান্ড ইমাম ড. আহমেদ আল তাইয়েব। গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরে গ্রান্ড ইমাম ড.তাইয়েব বলেন, মিয়ানমারে রোহিঙ্গা মুসলমানদের হত্যা ও বাড়িঘর পুড়িয়ে দেয়ার ঘটনা ঘটছে যা মানবতাবিরোধী অপরাধ। এসব নিষ্ঠুর কর্মকাণ্ড সব ধর্মের শিক্ষার বিরোধী ও আন্তর্জাতিক আইন অনুযায়ী স্পষ্টতই অপরাধ। রাখাইন প্রদেশে সম্প্রতি শুরু হওয়া বিদ্রোহ দমনের অংশ হিসেবেই এই হামলা চালানো হয়েছে বলে সেনাবাহিনী স্বীকারও করেছে। আর রোহিঙ্গা সূত্রগুলো বলছে, শুধু হত্যা করেই শেষ নয়, সেনাবাহিনী সেখানে মুসলিম জনগোষ্ঠীর উপর হত্যার পাশাপাশি রাখাইন সন্ত্রাসীরা এবং কতিপয় সেনাসদস্য রোহিঙ্গা মেয়েদের তুলে নিয়ে ধর্ষণ করছে।গ্রামের পর গ্রামও তারা জ্বালিয়ে দিয়েছে। অনেক রোহিঙ্গা প্রাণভয়ে পালাচ্ছে সাগরে কিংবা জঙ্গলে, তবুও রক্ষা হচ্ছে না।  তাছাড়া রাখাইনে দুটি সম্প্রদায়ের বসবাস মগ ও রোহিঙ্গা। মগরা বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বী। মগের মুল্লুক কথাটি বাংলাদেশে পরিচিত। দস্যুবৃত্তির কারণেই এমন নাম হয়েছে ‘মগ’দের। এক সময় তাদের দৌরাত্ম্য ঢাকা পর্যন্ত পৌঁছেছিল।মুঘলরা তাদের তাড়া করে জঙ্গলে ফেরত পাঠায়। রোহিঙ্গাদের সম্পর্কে একটি প্রচলিত গল্প রয়েছে এভাবে যে, সপ্তম শতাব্দীতে বঙ্গোপসাগরে ডুবে যাওয়া একটি জাহাজ থেকে বেঁচে যাওয়া লোকজন উপকূলে আশ্রয় নিয়ে বলেন, আল্লাহর রহমতে বেঁচে গেছি। এই রহম থেকেই এসেছে রোহিঙ্গা। তবে ওখানকার রাজসভার বাংলা সাহিত্যের লেখকরা ওই রাজ্যকে রোসাং বা রোসাঙ্গ রাজ্য হিসেবে উল্লেখ করেছেন। মায়ানমারের রোহিঙ্গা মুসলমানরা বিশ্বের সবচেয়ে ভাগ্যাহত জনগোষ্ঠী। এককালে যাদের ছিল স্বাধীন রাষ্ট্র, ক্ষমতা ও প্রভাব-প্রতিপত্তি এখন তারাই বৌদ্ধ সন্ত্রাসীদের অমানুষিক নির্যাতনের শিকার। মায়ানমারের মুসলিম জনগোষ্ঠীর ভাগ্য বিড়ম্বনার ইতিহাস যে কাউকে তাড়িত করবে। এই উপমহাদেশ ও দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় সর্বপ্রথম যে কয়টি এলাকায় মুসলিম বসতি গড়ে ওঠে, আরাকান তার মধ্যে অন্যতম। রোহিঙ্গারা সেই আরাকানি মুসলমানের বংশধর। এক সময় আরাকানে স্বাধীন মুসলিম রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়। ১৪৩০ সালে প্রতিষ্ঠিত মুসলিম শাসন দুইশ’ বছরেরও অধিককাল স্থায়ী হয়। ১৬৩১ সাল থেকে ১৬৩৫ সাল পর্যন্ত আরাকানে ব্যাপক দুর্ভিক্ষ হয়। এরপর মুসলিম শাসনের অবসান ঘটে। ১৬৬০ সালে আরাকান রাজা থান্দথুধম্মা নিজ রাজ্যে আশ্রিত মোগল সাম্রাট শাহজাদা সুজাকে সপরিবারে হত্যা করে। এরপর শুরু হয় মুসলমানের ওপর তার নিষ্ঠুর অমানবিক অত্যাচার নিপীড়ন। মায়ানমার দেশটির রাখাইন রাজ্যে শত শত বছর ধরে বসবাসকারী রোহিঙ্গা জাতিগোষ্ঠীর অস্তিত্বকে অস্বীকার করছে এবং তাদের প্রতিবেশী বাংলাদেশ থেকে আসা বাঙালি অভিবাসী বলে চিহ্নিত করার চেষ্টা চালাচ্ছে। তাছাড়া রাখাইন রাজ্যে ১০ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বসবাস করে। বার্মা সরকারের নির্যাতনের কারণে দেশ ত্যাগে বাধ্য হয়ে ৫ লক্ষের অধিক রোহিঙ্গা বাংলাদেশ এবং প্রায় ৫ লাখ সৌদি আরবে বাস করার একটি পরিসংখ্যান উইকিপিডিয়া থেকে জানা যায়। তাদের নাগরিকত্ব ও মৌলিক অধিকারকে অস্বীকার করছে মায়ানমার সরকার। বর্তমানে লক্ষাধিক রোহিঙ্গাকে বাড়িঘর থেকে উচ্ছেদ করে অভ্যন্তরীণ উদ্বাস্তু শিবিরে আটক অবস্থায় রয়েছে। মায়ানমারের সামরিক জান্তা মুসলমানদের জন্য সে দেশকে অগ্নিকুণ্ডে পরিণত করেছে। তাদের থেকে কেড়ে নেয়া হয়েছে উপার্জিত সব সম্পদের মালিকানা, নাগরিক অধিকার, মানবিক অধিকার,এমনকি বেঁচে থাকার অধিকারও। তাই তারা সমূহ বিপদের কথা জানার পরও মরিয়া হয়ে ছুটছে একটুখানি নিরাপদ ঠিকানার সন্ধানে। সর্বহারা এসব আদম সন্তান মৃত্যুর অপেক্ষায় আছে। বাংলাদেশ মায়ানমারের প্রতিবেশী দেশ হিসেবে মানবিক কারণেই মায়ানমারের আক্রান্ত রোহিঙ্গাদের পাশে দাঁড়ানো আমাদের কর্তব্য।

লেখক ও কলামিস্টraihan567@yahoo.com

 

সর্বশেষ সংবাদ