September 24, 2017

ছাত্রলীগের দায়িত্ব কি শুধু সোহাগ-জাকিরের?

8888888আব্দুর রহিম শামীম : সিলেটে জামাত শিবিরের হামলায় আহত ও পঙ্গু ছাত্রলীগ কর্মী শাহীন ভালো হয়নি ফিরে এসেছে নিজ বাড়ীতে ৷
বাড়ী থেকে যখন শাহীন বেরিয়ে গিয়েছিলো তখন তার হাত পা সবই ছিলো কিন্তু আজ সে তার নিজ বাড়িতে যখন ফিরে আসলো তখন তার একটি হাত নেই ৷
শাহীনের বাবা দরিদ্র কৃষক শাহীনের বোঝা নিয়ে ঢাকার পঙ্গু হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরলেন সাথে তার ভাই ফাহিম ৷ গতকাল ফাহিম আমাকে ফোন করে বলেছিলো , “ভাই ডাক্তার বলছে হয়তো রিলিজ দিয়ে দিতে পারে” আমি বলেছিলাম তোমরা রিলিজ নিওনা ডাক্তারকে বলবে পুরো ভালো না হলে আমরা চিকিৎসার মধ্যে থাকতে চাই , কিন্তু ফাহিম ফোন করে আজ জানালো তাদের ডিস্টারজ করে দিচ্ছে এখন বাড়ী যাওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই , পরে চেকআপ করাতে ও প্লাস্টার কাটাতে আবার ঢাকার পঙ্গু হাসপাতালে আসতে হবে তাই কি আর বলবো বললাম ঠিক আছে যাও ৷
ঢাকায় দরিদ্র শাহীন ও তার পরিবারকে এক বেলা খাবার দেবার মত কেউ ছিলনা তাই আমার পরিচিত অনেক কে অনুরোধ করেছিলাম কাকুতি মিনতি করেছিলাম – বলেছিলাম পঙ্গু হাসপাতালে গিয়ে শাহীনকে একটু দেখে আসতে তার মধ্যে ঢাকায় বসবাসরত আমার প্রানপ্রিয় সংগঠন আওয়ামীলীগ ,যুবলীগ ও ছাত্রলীগের নেতৃবৃন্দ মাননীয় এমপি ও মন্ত্রী ও রয়েছেন ৷
যারা গিয়েছিলেন তাদের প্রতি ধন্যবাদ আর কৃতজ্ঞতা জানানোর ভাষা আমার জানা নেই আর যারা সময়ের ব্যস্ততায় যেতে পারেননি বা মন্ত্রীত্ব এমপিত্ব ও নেতৃত্ব নিয়ে ব্যস্ততার কারণে যেতে পারেননি তাদের ও ধন্যবাদ কৃতজ্ঞতা ৷ দোয়া করি তারা আরো বড় মন্ত্রিত্ব ,এমপিত্ব ও নেতৃত্ব পাক যেন বাংলাদেশ শুধু নয় বিশ্বময় তাদের সুনাম ছড়িয়ে পড়ে তবে শাহীনকে দেখার আর তাদের প্রয়োজন নেই ৷
আসিফ এখনো ওসমানী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন রয়েছে আসিফের ভাই আজাদ জানালো তাকে রেফার করা হতে পারে আমি বলেছি তোমাদের সাথে আছি ৷
আমাদের সিলেটের নেতৃবৃন্দ আসিফকে দেখতে গিয়েছেন একই ভাবে তাদের প্রতি ধন্যবাদ ৷
শুরু থেকে তাদের নিয়মিত খবরা খবর নিচ্ছি এবং ভবিষ্যতে ও নেবো তারা আমার মহান মুজিবাদর্শের মৃত্যুঞ্জয়ী কাফেলা ৷
আমার প্রিয় সংগঠন ক্ষমতায় আর শাহীন আসিফের পাশে যথাযত ভাবে দাঁড়ানোর বা আন্তরিকতা দেখানোর যতটুকু প্রয়োজন ছিলো ততটুকু কি শাহীন আসিফ পেয়েছে ? এ প্রশ্নের উত্তর খুঁজতে গেলে আমি বলবো না হয়নি কারণ আজ থেকে ২৮ বছর পূর্বে সন্ত্রাসী হামলায় আমি যখন আহত হয়েছিলাম তখন এরশাদ সরকার ছিলো আর আমরা বিরোধী দলে ছিলাম , আমি আন্তরিকতা পেয়েছি আমার প্রাণপ্রিয় নেত্রী আমার চিকিৎসার ভার নিয়েছিলেন নেত্রীর দেয়া ৩২ নাম্বারের খাবার আড়াই মাস খেয়েছিলাম ,নেত্রী ও কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ প্রায় সকলেই দেখতে এসেছিলেন জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ যে কতবার এসেছিলেন হিসেব রাখিনি ৷
কিন্তু আজ এই আন্তরিকতার প্রচন্ড অভাব শাহীন আসিফের বেলায় আমার অনুভূত হলো কারণ ক্ষমতা পেয়ে আমরা সব ভুলে যাচ্ছি আমাদের দয়া মায়া আন্তরিকতা সব আজ কেন যেন বাণিজ্যিক হয়ে যাচ্ছে ৷
আমাদের ভাবটা এমন যেন এসব ছাত্রলীগ আর সুহাগ – জাকিরের ই দায়িত্ব আওয়ামীলীগের নয় আগস্ট মাসের ব্যস্ততার মধ্যে সুহাগ- জাকির বার বার খবর নিয়েছে শাহীনকে দেখতে তারা হাসপাতালে গিয়েছেন এবং তারা ও ছাত্র তাদের ব্যবসা বা চাকুরী নেই তারপর ও ১০ হাজার টাকা করে করে দু’জনে ২০ হাজার টাকা দিয়েছে , ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ দেখতে গিয়েছে খবর নিয়েছে আর আমেরিকা থেকে অনুজ শ্নেহাস্পদ মিজান চৌধুরী , রব্বানী ভাই , কাজী কয়েছ ভাই কানাডা আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি সরওয়ার আহমেদ , যুক্তরাজ্য আওয়ামীলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আনোয়ারুজ্জান চৌধুরী সহ অনেকে আর্থিক সাহায্য করেছেন শাহীনকে ৷
কিন্তু নেতৃবৃন্দের ভাবটা এমন যে ছাত্রলীগের সব দায় উনাদের কোন দায়িত্ব নেই বিষয়টা গভীর ভাবে আমাকে নাড়া দিয়েছে আওয়ামীলীগের আগের আন্তরিকতা গেলো কোথায় ? কেন এমন হলো সরকারের মাননীয় দু’জন মন্ত্রী শাহীন কে দেখতে গিয়েছিলেন একজন চাকুরীর প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন আর অপরজন খালি হাতে উপদেশ দিয়ে এসেছেন এই করোনা সেই করোনা ইনফেকশন হবে ইত্যাদি ৷
শাহীনের এ অবস্থায় আমার মনে হচ্ছে আসলে আমরা আওয়ামী পরিবার বিরোধী দলে থাকতে আমাদের পরিবারে দয়া , মায়া , ভালোবাসা , আন্তরিকতা ছিলো আমরা ভালো ছিলাম কিন্তু আজ ক্ষমতায় আমাদের সেই ভালোবাসা ও আন্তরিকতা নেই ৷ কিন্তু কেন ? এ অবস্থা কেন ? এর উত্তরে আমি বলবো আওয়ামীলীগে আওয়ামীলীগ প্রতিষ্ঠা খুবই জরুরী ৷ আজ মনে হচ্ছে ছাত্রলীগের সাবেক সফল সাধারণ সম্পাদক স্নেহাস্পদ সিদ্দিকী নাজমুল আলম ঠিকই বলেছিলো “ছাত্রলীগ এতিমের সংগঠন” আর ছাত্রলীগের বর্তমান সভাপতি সাইফুর রহমান সোহাগ বলেছিলো ” ছাত্রলীগ ক্ষুদার্থ থাকে , খাবার পায়না ” ৷ তাই আমাদের বিরোধী দলে থাকাটাই ভালো ছিলো নয়কি ?

লেখক-আব্দুর রহিম শামীম–রাজনৈতিক কর্মী

সর্বশেষ সংবাদ