September 24, 2017

বড়লেখায় পাঁচ জয়িতার জীবন সংগ্রাম

Barlekha_Pic-04.06বিশেষ প্রতিনিধি :  অনেক নারী জীবনে নানা চড়াই-উতরাই পেরিয়ে ইচ্ছেশক্তির জোরে সমাজে নিজের অবস্থান তৈরী করে নিয়েছেন। পরিবারের পাশাপাশি সমাজের উন্নয়নেও তারা ভূমিকা রেখে চলেছেন। বন্ধুর পথে চললেও নিজেদের শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণ করতে পেরেছেন। তাঁরা সমাজের আনাচে-কানাচে ছড়িয়ে আছেন। তাঁরাই জয়িতা, বাংলাদেশের আলোকবর্তিকা। তাঁরা সবার অনুপ্রেরণা। এরকম পাঁচজন জয়িতা মৌলভীবাজারের বড়লেখায় নানা প্রতিবন্ধকতা ও সমস্যা সংকটের সঙ্গে লড়াই করে অর্থনৈতিকভাবে সফলতা অর্জন করেছেন।

জীবন সংগ্রামে বাধা-বিপত্তি পেরিয়ে সফলতার জন্য তারা মহিলা বিষয়ক অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়িত “জয়িতা অন্বেষণে বাংলাদেশ” ২০১৬ নির্বাচিত হয়েছেন। সম্প্রতি অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ পাঁচ জয়িতার হাতে পুরস্কার তুলে দেয়া হয়। এতে মহিলা বিষয়ক অফিসের কর্মকর্তা মোছাঃ হোসনে আরা তালুকদারের সভাপতিত্বে ও অফিস সহকারি মৃগেন কান্তি ভাদুড়ী’র সঞ্চালনায় অতিথি ছিলেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা এসএম আব্দুল্লাহ আল মামুন।

সুনারা বেগম: উপজেলার উত্তর শাহবাজপুর ইউনিয়নের অসহায় দরিদ্র পরিবারের মেয়ে সুনারা বেগমের ১২ বছর বয়সে বাল্য বিয়ে হয় এলাকার যুবক ছিদ্দেক আলীর সাথে। বিয়েতে যৌতুক হিসেবে স্বামীকে ১৫ হাজার টাকা প্রদান করা হয় সুনারার পরিবার থেকে। কিন্তু স্বামীর আর্থিক অবস্থা ভালো না থাকায় স্বামী যৌতুকের জন্য প্রায়ই নির্যাতন করত। এরই মধ্যে একে এক জন্ম নেয় তিনটি সন্তান। কিন্তু থেমে থাকেনি স্বামীর নির্যাতন। শারীরিক, মানসিক কঠিন নির্যাতনের শিকার হয়ে বাবার বাড়ি চলে যান সুনারা। সন্তানদের দিকে তাকিয়ে নিজের মনোবল দৃঢ় রেখে নতুন উদ্যমে জীবনকে এগিয়ে নিতে শুরু করেন। কঠিন সংগ্রামে এগিয়ে যাচ্ছেন সুনারা। স্বামী পরিত্যক্তা হওয়া সত্বেও প্রতিকূল পরিবেশে ৩ সন্তানকে নিয়ে সংসার করার দৃঢ় মনোবলে এগিয়ে যান এই সংগ্রামী নারী। ৩টি সন্তানকে নিয়ে তিনি মাথায় সবজি নিয়ে বাড়ি বাড়ি বিক্রি শুরু করেন। এছাড়া বাড়ির সামনে মুদি দোকান দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছেন সংগ্রাম। এ অবস্থায় তিনি মেয়েদের ভরণ পোষনসহ চালিয়ে যাচ্ছেন ছেলের পড়াশোনা। নিজের চেষ্টায় নিজেকে স্বাবলম্বী করতে সক্ষম হয়েছেন সংগ্রামী এই নারী।

শুক্লা রানী দেব :  তিন সন্তানের জননী শুক্লা রানী দেব। পিতার সংসারে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত লেখাপড়া করতে পেরেছিলেন। বিয়ে হয় উপজেলার দাসেরবাজার ইউনিয়নের চিন্ময় দেবের সাথে। স্বামীর অনটনের সংসারে সহযোগীতা করতে তিনি সেলাই এর কাজ শেখেন। তারপরও মেটেনি সংসারের অভাব। অর্ধাহারে দিন কাটতে থাকে শুক্লার পরিবার। কিন্তু অনটনের সংসারে সন্তানদের শিক্ষার প্রতি আগ্রহী করে তুলেন তিনি। সারাদিন দর্জির দোকানে কাজ করে চালিয়েছেন সন্তানদের লেখাপড়া। খোঁজ খবর রাখতেন সবসময়। সন্তানদের সুশিক্ষিত এবং উচ্চ শিক্ষা প্রদানের জন্য ধার দেনা করেছেন। বিক্রি করেছেন শেষ সম্বল জমি। তিন সন্তান শিক্ষা ক্ষেত্রে সাফল্যের স্বাক্ষর রেখেছে। এরমধ্যে বড় মেয়ে শিক্ষকতা করছেন। দ্বিতীয় মেয়ে ও ৩য় ছেলে মেডিকেলে অধ্যয়নরত। বর্তমানে তাঁর উপার্জন দিয়ে দুই সন্তানের খরচ চালানো সম্ভব হচ্ছে।

মাকছুদা বেগম : সদর ইউনিয়নের অজমীর গ্রামের আব্দুস সাত্তার স্ত্রী মাকছুদা বেগম। কানসাই হাকালুকি বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হিসেবে কর্মকরত তিনি। শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে সাফল্য অর্জন করা মাকছুদা বেগমের শিক্ষা জীবন সুখকর ছিল না। পরিবার ও সামাজিক বাধা ও বাল্যবিবাহের বাধা অতিক্রম করে অধম্য ইচ্ছা শক্তির জোরে পাশ করেন বিএ.বিএড। শিক্ষকতা পেশায় নিয়োজিত থেকে তিনি নারী শিক্ষার প্রসারে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন। পাশাপাশি বাল্যবিবাহ ও ইভটিজিং প্রতিরোধে অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন এই শিক্ষিকা।

শাহ ফাহমিদা জান্নাত (মদিনা) : উপজেলার বর্ণি ইউনিয়নের শাহ ফাহমিদা জান্নাত (মদিনা)। বিএ অধ্যয়নরত। অভাবের সংসারে বাবা মায়ের ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। মায়ের সাথে ওঠেন মামা বাড়িতে। দারিদ্রতাকে জয় করতে বাবা ছেড়ে দিলেও দমে থাকেননি ফাহমিদা। অদম্য স্পৃহা এবং মনোবল নিয়ে সংসার চালাতে দর্জির প্রশিক্ষণ নেন বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠানে (মহিলা বিষয়ক, প্রাণিসম্পদ, আনসার ভিডিপি)। নিজস্ব চেষ্টায় গড়ে তুলেন দর্জির দোকান। তাঁর এ উদ্যোগ কিছু দিনের মধ্যে সাড়া ফেলে সর্বত্র। বর্তমানে তার প্রতিষ্ঠানে অসহায় পরিবারের ৬জন নারী কর্মরত। মাসে তাঁর আয় ২০ হাজার টাকার উপরে। বর্তমানে তাকে আর অন্যের সহেযোগিতার ওপর নির্ভর করতে হচ্ছে না।

রুজিনা বেগম : পরিবার ও সামাজিক বাধার কারণে বেশি দূর লেখাপড়া করতে পারেননি। কোনমতে ৮ম শ্রেণী পর্যন্ত পড়েছেন। রুজিনা বেগম বর্তমানে বড়লেখা পৌরসভার (সংরক্ষিত নারী) কাউন্সিলর। সমাজ উন্নয়নে অসামান্য অবদান রেখেছেন। নারীর ক্ষমতায়নের জন্য দরিদ্র মেয়েদের শিক্ষার প্রসারের কথা চিন্তা করতে তিনি আশার প্রদীপ নামক যুব মহিলা সমিতি গড়েন। সমিতির মাধ্যমে তাদের পড়াশুনায় আগ্রহী করে তুলেন রুজিনা বেগম। গ্রামের প্রত্যন্ত অঞ্চলের মেয়েদেরকে প্রশিক্ষিত করার জন্য তিনি বিভিন্ন দপ্তরের সাথে যোগাযোগ স্থাপন করেন। প্রেরণা যোগান মেয়েদের। যার ফলে মেয়েরা প্রশিক্ষিত হওয়ার পাশাপাশি স্বাবলম্বি হচ্ছে। এছাড়া মেয়েদের বাল্যবিবাহ, বহুবিবাহ, যৌতুক ও তালাক, নারী নির্যাতন ইত্যাদির বিরুদ্ধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলে সফল হয়েছেন। নিজ উদ্যোগে প্রশাসনের সহায়তায় বন্ধ করেছেন অসংখ্য বাল্যবিবাহ। নারীর ক্ষমতায়নে তাঁর অবদান অনন্য।

সর্বশেষ সংবাদ